আবারও প্রমাণ হলো না.গঞ্জে আওয়ামীলীগের শক্তির প্রতিক শামীম ওসমান

শামীম ওসমান আওয়ামী লীগের শক্তির প্রতীক’ কয়েক বছর আগে কথাটি বলেছিলেন বিশিষ্ঠ সাংবাদিক ও কলামিষ্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী। আসলেই যে তিনি শক্তির প্রতীক সেটা আবারও প্রমাণিত হয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে। আওয়ামী লীগ বনাম স্বতন্ত্র বিএনপি নেতার ভোটযুদ্ধে বারবার উঠে আসছিলো শামীম ওসমানের নাম। যদিও শুরু থেকেই তিনি ছিলেন নিশ্চুপ। তার ভাষায়, হিমালয়সম কষ্ট বুকে নিয়ে নিজেকে গুটিয়ে রেখেছিলেন। এদিকে তফসিল ঘোষণার পর থেকেই সবার দৃষ্টি ছিলো শামীম ওসমানের প্রতি। নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় নেতাদের কানেও ফিস ফিস করে বলা হয়েছে, শামীম ওসমানের নিরবতা ভোটের মাঠে ক্ষতির কারণ হবে। দলীয় প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভী প্রচারণার শুরুতে বলেছেন, তিনি (শামীম) আমার বড় ভাই, আমাদের দলের নেতা। এমপি হওয়ার কারণে তিনি সরাসরি মাঠে নামতে পারছেন না। কিন্তু নৌকার প্রতি তার সমর্থন রয়েছে। তাপরও কেন যেন জমছিলোনা নির্বাচন। দলীয় নেতা-কর্মীরা নির্বাচনের মাঠে থাকলেও ছিলোনা সেই উদ্দিপণা। আর এতেই সন্দেহ দানাবাঁধে নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় নেতাদের মাঝে। কতিপয় নেতারা নির্বাচনের মাঠে কাজ না করে সর্বক্ষন পার্টি অফিসে বসে কেন্দ্রীয় নেতাদের বিভিন্নভাবে প্রভাবিত করেন যে, শামীম ওসমান নিশ্চুপ থাকায় তার বিশাল কর্মী বাহিনীকে বিশ^াস করা যাচ্ছেনা। ‘মুখে নৌকা, অন্তরে ক্ষোভ’ তৃনমূলের প্রতিটি নেতা-কর্মীর। যা ভোটের মাঠে মারাত্মক ক্ষতির কারন হবে। তারা এও বোঝাতে চেয়েছেন, আইভীকে নৌকা দিয়েছেন প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই নৌকার পক্ষে মাঠে না নেমে শেখ হাসিনাকে চ্যালেঞ্জ দিচ্ছেন শামীম ওসমান। ফলে কেন্দ্রীয় নেতারা ইঙ্গিতে শামীম ওসমানকে উদ্দেশ্য করে হুশিয়ারী দিয়েছেন। এসব নিয়ে যখন আওয়ামী লীগৈর ভেতরে চরম উত্তেজনা ঠিক সেই সময়ে নীরবতা ভেঙ্গে জনসম্মুখে এলেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের প্রাণখ্যাত শামীম ওসমান। ঘোষনা দিলেন, নৌকার পক্ষে ছিলেন, আছেন, থাকবেন। কোন ষড়যন্ত্রই তাকে নৌকা থেকে আলাদা করতে পারবেনা। সোমবার (১০ জানুয়ারী) বিকেলে সেই বহুল প্রতিক্ষিত সংবাদ সম্মেলনে আসেন নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। শহরের বাধন কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বক্তব্য দেন। এসময় তার সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ ও অংগ সংগঠনের সকল শীর্ষ নেতারাই উপস্থিত ছিলেন। বাইরে ছিলো হাজার হাজার নেতা-কর্মীদের ভীড়। নেতা সংবাদ সম্মেলন করতে আসছেন খবর পেয়ে প্রায় অর্ধ কিলোমিটার এলাকা লোকে লোকারন্য হয়ে যায় শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক। সংবাদ সম্মেলনে কি বলবেন শামীম ওসমান এনিয়ে নারায়ণগঞ্জসহ দেশজুড়ে মানুষের আগ্রহের কমতি ছিলোনা। দলীয় মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর মুখে ‘গডফাদার’ সহ নেতিবাচক বক্তব্যের প্রতিউত্তরে শামীম ওসমান কি বলেন, আদৌ তাকে সমর্থণ দিবেন, নাকি বিগত দিনে মেয়র থাকাকালে সেলিনা হায়াৎ আইভীর অন্যায়-অবিচার, দলীয় নেতা-কর্মীদের উপর নীপিড়ন, মামলা দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করাসহ যাবতীয় নেতিবাচক কর্মকান্ড জনসম্মুখে তুলে ধরবেন। অবশেষে দলের প্রতি অসম্ভব আনুগত্য দেখিয়ে সবকিছুকে বুকে চাপা দিন। সকল জল্পনা-কল্পনাকে পেছনে ফেলে নৌকার পক্ষে আনুষ্ঠানিক মাঠে নামার ঘোষনা দিয়ে শামীম ওসমান বলেছেন, স্বাধীণতার মার্কা নৌকা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর মার্কা নৌকা, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার মার্কা নৌকা। সেই নৌকাকে জেতাতে আজ থেকে মাঠে নামলাম। ১৬ তারিখে খেলা হবে, সেই খেলায় আমরাই জিতবো। যোগ করেন তিনি। প্রায় এক ঘন্টার সংবাদ সম্মেলনে স্মৃতি চারণ করে বলেন, আমার বাবা মৃত্যুর ১৫ থেকে ৩০ মিনিট আগে আমাদের ৩ ভাইকে (নাসিম ওসমান, সেলিম ওসমান, শামীম ওসমান) বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাতে তুলে দিয়েছিলেন। সেসময় বলেছিলেন, আমার ৩ সন্তান যদি বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নিতে গিয়ে মারা যায় তবে আমি যেখানেই থাকি শান্তি পাবো। জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা আমাদের অভিভাবক, আমাদের শেষ ঠিকানা। নৌকাকে পরাজিত করার শক্তি বিএনপি-জামায়াতের নাই। হাতি নৌকাকে ডোবাতে পারবেনা। এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সেলিনা হায়াৎ আইভীকে নৌকা প্রতীক দেয়ায় যে ক্ষোভ, অস্বস্থি দানা বেধেছিলো স্থানীয় বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মীদের মাঝে, দলীয় স্বার্থে, নেত্রীর (শেখ হাসিনা) সম্মানে সকল ক্ষোভ-দুঃখ ভুলে নৌকার পক্ষে নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে নামার আহŸান জানান এমপি শামীম ওসমান। তিনি বলেন, প্রার্থী কলাগাছ না আম গাছ সেদিকে দেখার দরকার নাই। বঙ্গবন্ধুর নৌকা, শেখ হাসিনার নৌকা, স্বাধীণতার নৌকা কেউ ডোবাতে পারবেনা। আজ থেকে মাঠে নামলাম। শামীম ওসমানের এই ঘোষনার পর গোটা নারায়ণগঞ্জে ব্যাপক উজ্জবীত হয়ে উঠেছে আওয়ামী লীগ ও অংগ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। দীর্ঘদিনের রাগ-অভিমান ভুলে নেতার নির্দেশে মাঠে নেমে পড়েছে সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা। যুবলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মী বলেন, নেতা বলেছেন নেত্রী (শেখ হাসিনা) নৌকা দিয়েছেন এটাই বড় কথা। কাকে দিয়েছেন, কে কি বলছে সেটা দেখার সময় নাই। বঙ্গবন্ধুকে যার মাধ্যমে চিনেছি, শেখ হাসিনাকে যার মাধ্যমে জেনেছি, সেই শামীম ওসমান বলেছেন ব্যাস আর কোন কোন কথা নাই। সোমবার থেকে নৌকার পক্ষে নারায়ণগঞ্জে জাগরণ শুরু হয়ে গেছে। এই জাগরণ ১৬ জানুয়ারী জয়ের মালা উপহার দেবে আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে। কোন অপশক্তি নৌকার জয়কে রুখতে পাবেনা।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Back to top button