“আমাদের প্রতিটি গান একেকটা প্রতিবাদ!”- ব্যান্ড নক্সাল।

এই ৫৬ হাজার বর্গমাইলে ব্যান্ড সংগীত শ্রোতাদের কাছে বর্তমানে “নক্সাল” এক পরিচিত নাম। নিজেদের ভিন্নধর্মী গান ও জীবন্ত লিরিক্সের কারণে শ্রোতাদের মনে বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে ব্যান্ডটি।
নক্সালের যাত্রা শুরু ২০১২ সালে। তাহা, দেবু সহ কয়েকজন সংগীতপ্রিয় বন্ধু মিলে এক আড্ডায় ব্যান্ডটি গঠন করার স্বপ্ন দেখেন।
পরবর্তীতে ২০১৩ সালে জুলাইয়ের ২ তারিখে তারা তাদের স্বপ্ন দেখার মঞ্চ, অর্থাৎ তাদের ব্যান্ড “নক্সাল” গঠন করেন।
ব্যান্ডটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হলেন – তাহা, দেবু। তারা সংগীত জীবনে প্রবেশ করার অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের অতি জনপ্রিয় ব্যান্ড “মহীনের ঘোড়াগুলি”- এর থেকে। তখন “মহীনের ঘোড়াগুলি” এবং সেই ব্যান্ডটির ভোকাল “গৌতম চট্টোপাধ্যায়” – এর জীবনাদর্শে বড্ড আকর্ষণের কারণেই তারা তাদের ব্যান্ডটির নাম রাখেন “নক্সাল”। এছাড়াও তাদের অনুপ্রেরণা ছিলো নগরবাউল, এলআরবি, আর্ক, ওয়ারফেজ, আর্টসেল ; যেগুলো বাংলাদেশের স্বনামধন্য ব্যান্ড। এবং নক্সালের অনুপ্রেরণা হিসেবে বিদেশী ব্যান্ডসমূহ হচ্ছে পিংক ফ্লয়েড, লেড জেপলিন, এসি ডিসি, আইরন মেইডেন, ড্রীম থিয়েটার, অল্টার ব্রীজ।
ব্যান্ডটির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্যবৃন্দ হচ্ছেন –
ভোকাল – তাহা।
বেজ – জুবায়ের।
গিটার – দেবু , রাফিউ।
ড্রামস – রিফাত।
পরবর্তীতে ব্যান্ডটির লাইনআপ পরিবর্তিত হয় এবং তখন সদস্য ছিলেন –
ভোকাল- তাহা।
বেজ – দেবু।
গিটার – তানজিম, পাভেল, নাবিল।
ড্রামস – সজল।
এবং পুনরায় পরিবর্তিত হয়ে “নক্সাল”-এর বর্তমান লাইনআপ হচ্ছে-
ভোকাল – তাহা।
বেজ- দেবু।
গিটার – দিব্য, পাভেল।
ড্রামস – প্রণয়।
এবং পরবর্তীতে দেশের খ্যাতনামা রোর সাউন্ড এবং লজিস্টিকসের সত্ত্বাধিকারী রাইস আল দ্বীন নক্সালের ম্যানেজার এবং কোর্ডিনেটর হিসেবে যোগদান করেছেন।
২০১৫ সালের ৩১শে জানুয়ারি স্টেট ইউনিভার্সিটিতে ব্যান্ডটি তাদের প্রথম স্টেজ পার্ফমেন্স অর্থাৎ কনসার্ট করে।
২০১৬ সালে নক্সাল তাদের প্রথম গান “দরকার নাই” প্রকাশ করে ইউটিউবের মাধ্যমে। ভিন্নধর্মী হৃদয়স্পর্শী লিরিক্স এবং অসাধারণ কম্পোজিশনের কারণে শ্রোতাদের মাঝে গানটি ব্যাপক সাড়া ফেলেছিলো। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালের ৭ই আগস্ট নক্সাল তাদের আরেকটি হিট গান “জারজ” রিলিজ করে।
ভার্চুয়াল সাক্ষাৎকারে নক্সালের সদস্যবৃন্দ বলেন তাদের প্রত্যেকটি গান একেকটি প্রতিবাদের স্বরূপ। তারা গান রচনা করেন সমাজের বৈষম্য, দূর্নীতী, সাম্প্রদায়িকতা এবং অদৃশ্য ভেদাভেদের কাঁটাতাড়ের বিরূদ্ধে।
বর্তমান সময়ে নক্সালের সদস্যবৃন্দ তাদের প্রতিটি কনসার্টের ভেন্যুতে কনসার্টের পর একটি করে বৃক্ষ রোপণ করেন এবং এই কাজের দ্বারা তাদের শ্রোতাদের বৃক্ষরোপণে উৎসাহিত করেন।
সাক্ষাৎকারে তারা জানান যে এই মহামারী পরিস্থিতি কেটে গেলে তারা শ্রোতাদের “বিনিদ্রা” নামের একটি গান উপহার দিচ্ছেন। তারা আরো জানান তাদের প্রথম অ্যাল্বাম প্রকাশ হতে চলেছে ২০২১ সালে।
শ্রোতাদের কাছে বক্তব্য হিসেবে নক্সালের ভোকাল “তাহা তানভীর” বলেন- “বাংলাদেশের ব্যান্ড মিউজিক অত্যন্ত সম্মৃদ্ধ। এদেশের প্রত্যেক সংগীতপ্রেমীর উচিৎ ভালো গান এবং শিল্পীদের উৎসাহিত করা যাতে শিল্পী বা ব্যান্ডসমূহ মানসম্মত গান উপহার দিয়ে দেশের সংগীতজগৎকে আরো সম্মৃদ্ধ করতে পারে।”

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button