এসএসসি -২০২০ ফলাফল প্রকাশ উপলক্ষে শিক্ষার্থীদেরকে মিষ্টিমুখসহ উপহার সামগ্রী বিতরণ করলো “রাশা”।

মাগুরা জেলা সদরে অবস্থিত রাউতড়া হৃদয়নাথ স্কুল এন্ড কলেজের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়ে তোলা সংগঠন,
” রাউতড়া হৃদয়নাথ স্কুল এন্ড কলেজ এক্স স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন (রাশা)” কতৃক আয়োজিত এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ উপলক্ষে তাদের প্রতিষ্ঠানের জিপিএ -৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের মাঝে মিষ্টিমুখ করালো ও পাশাপাশি উপহার সামগ্রী হিসেবে রাশা’র মনোগ্রাম সংবলিত ডাইরি এবং কলম উপহার হিসেবে দিয়েছে। এ বিদ্যালয় থেকে এ শিক্ষাবর্ষে বিজ্ঞান বিভাগ ১৯ জন,মানবিক বিভাগ ৫০ জন,ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ ৫৩ জন করে তিনটি বিভাগ থেকে মোট ১২২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেছিলো। এ বছরে তাদের বিদ্যালয়ের পাশের হার ৯৮.৯৬% এবং জিপিএ- ৫ পেয়েছেন ১২ জন। বিগত বছরের তুলনায় একবারের ফলাফল অধিকতর ভালো বলে দাবি করছেন এ বিদ্যালয়ের শিক্ষকমন্ডলী ও শিক্ষার্থীরা।

শ্রাবনী মৈত্র বলেন, রাশা’র এই ব্যতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠানে আমি আনন্দিত। “রাশা” যেন এভাবে সবার পাশে থেকে তাদের কার্যক্রমকে এগিয়ে নিয়ে যায়।
প্রত্যয় দে বলেন, এ অনুষ্ঠান আমার ভাল লেগেছে।আমি খুশি হয়েছি।

পাশাপাশি জিপিএ -৫ পাওয়া মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী উপমা কুন্ডু বলেন,রাশা’কে অনুরোধ করবো যেন এভাবেই আমাদের ছোটদের পাশে থাকে এবং উৎসাহিত করে।


এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা আজিজ ও সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ঘোষ আরও উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ,রাশার সদস্যবৃন্দ এবং জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীরা।
অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন সংগঠনটির সদস্য মুন্সী শহিদুল ইসলাম এবং গীতা পাঠ করেন মনোরঞ্জন বিশ্বাস।
এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা আজিজ, তপন কুমার ঘোষ এবং রাশার সদস্যদের মধ্যে থেকে মোঃশাহিদুল ইসলাম,রামকৃষ্ণ মিত্র, মুন্সী শহিদুল ইসলাম।
জিপিএ -৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে থেকে বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞান বিভাগের শ্রাবনী মৈত্র ও প্রত্যয় দে।

এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবার মাঝে নাস্তা বিতরণ করা হয় এবং ফলাফল প্রকাশের পর শিক্ষার্থীরা একসাথে হওয়ায় বিদ্যালয়ে একটি উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজমান ছিল।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও রাশা’র সদস্য মাহমুদুল হাসান পলাশ।
প্রধান শিক্ষককের সমাপনী বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানটি শেষ হয়।

প্রধান শিক্ষক তপন কুমার ঘোষ বলেন,এবছরের ফলাফল আশানুরূপ। এ ফলাফলে জেলার ভালো অবস্থানে থাকবো বলে মনে করি।আর ” রাশা” আমার অত্যন্ত কাছের একটি সংগঠন। আমার সহকর্মীদের মতো রাশা’কে ও বিদ্যালয়ের উন্নয়নে আমি আমার সহকর্মীদের মতোই দেখি।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button