নাটোর জেলার লালপুর থানার ৩ নং চংধুপইল ইউনিয়নের মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রটি অচল অবস্থায় পড়ে আছে।

নাটোর জেলার,লালপুর থানার, ৩ নং চংধুপইল ইউনিয়নের পাশে আব্দুলপুর বাজার সংলগ্ন প্রায় ১.৫ একর জমির উপর ১ টি সরকারি মা ও শিশু কল্যাণকেন্দ্র অবস্হিত। এটি ১৯৬৫ সালে স্থাপিত হয়। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে প্রায় ২০ হাজার এই গ্রামিন জনপদের মানুষ বিভিন্ন রকম অসুখের জন্য চিকিৎসা সেবা ও ঔষুধ নিতে এখানে আসতেন

এখানে একজন এম বি বি এস ডাক্তারের পোষ্ট রয়েছেন, মেডিক্যাল অফিসার থাকার কথা পোষ্ট আছে আয়ার, ফামাসিষ্ট, কিন্তু এদের কেউ নেই অথচ এই চংধুপইল ইউনিয়নের ৮ কিলোমিটারের মধ্যে কোন ভালো ক্লিনিক বা সরকারি হাসপাতাল নেই। এই ইউনিয়নে এখন জনসংখ্যা প্রায় ৪০ হাজারের উপরে অথচ এই গ্রামিন সাধারন জনগনের জন্য নেই একজন ভালো এম,বি, বি, এস ডাক্তার।

এখান থেকে জরুরী কোন সেবা পেতে ৩৫ কিলোমিটার দূরে জেলা শহরে নাটোর যেতে হয়। যাতে চরম দুভোগ পোহাতে হয় যাতায়াত ব্যবস্থার কারনে। খোজ নিয়ে জানতে পারি মাত্র একজন পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা আছেন অফিসে। তাও তিনি নাটোর জেলা শহরে থাকেন ৯ টা ৫টা অফিস করে চলে যান। একজন দায়া আছেন একজন নিরাপত্তা প্রহরী আর একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মি। পরিদর্শিকার সাথে কথা বলে জানলাম যারা আসেন সেবা নিতে তাদের ভালো কোন ঔষধ দিতে পারেন না অনেকেই খালি হাতে ফিরে জান ঔষুধ নেই বললেই চলে।।

অনেক কিছুই তাদের থাকার কথা থাকলেও তার অনেকাংশে কিছুই নেই।। মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রটি অচল অবস্থায় পড়ে আছে। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন জায়গায় সরকারি ডাক্তার নিয়োগ হচ্ছে দয়া করে কৃর্তপক্ষ যদি সদয় দৃষ্টি দেন। তাহলে এই গ্রামীণ জনপদের ৪০ হাজার মানুষ জরুরী উন্নত সেবা ও ঔষুধ পেয়ে উপকৃত হতো।। পরিশেষে সকল ইউনিয়ন বাসিদের সহযোগিতায় কাম্য করছি ধন্যবাদ।।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button