না.গঞ্জে ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের কবরে শ্মশানের মাটিতে ঢেকে ফেলার এমপি খোকার নিন্দা

নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় কবরস্থানে শ্মশানের মাটি কবরে ফেলে ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহা ও প্রয়াত সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমানের করব ঢেকে ফেলার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য, জাতীয় পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব ও জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি লিয়াকত হোসেন খোকা।

নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় কবরস্থানে শ্মশ্মানের মাটি দিয়ে কবর ঢেকে ফেলার ঘটনায় মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) এই নিন্দা জানান।

এক বিবৃতিতে লিয়াকত হোসেন খোকা বলেন, ‘স্বাধীনতার পূর্ববর্তী সময় থেকে নারায়ণগঞ্জ বাংলাদেশের মধ্যে হিন্দু মুসলিম সা¤প্রদায়িক স¤প্রতির অনন্য উদাহরণ। এমনকি সকল ধর্মের মানুষদের শেষ ঠিকানাও এই জেলাতেই পাশাপাশি জায়গায়। একটি ধর্মীয় স¤প্রদায়ের শ্মশানের মাটি এনে আরেক ধর্মাবলম্বীদের কবরস্থানে কবর ঢেকে ফেলার ঘটনা নি:সন্দেহে যে কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে। নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় কবরস্থানে শ্মশ্মানের মাটি দিয়ে কবর ঢেকে ফেলার যে ঘটনা ঘটানো হয়েছে, তাতে আমি ব্যথিত, মর্মাহত এবং লজ্জিত। তাই ন্যাক্কারজনক ওই ঘটনার সৃষ্টি করে যারা পরিস্থিতি ঘোলাটে করার চেষ্টা চালিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ, দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ রাখছি।’

প্রসঙ্গত, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কেন্দ্রীয় (মাসদাইর) কবরস্থান ও শ্মশানের প্রাচির নির্মাণের কাজ পায় মামুন নামের এক ঠিকাদার। কাজ করতে গিয়ে শামীম ওসমানের বাবা প্রয়াত একেএম শামসুজ্জোহা, মা নাগিনা জোহা, বড় ভাই একেএম নাসিম ওসমানসহ স্বজন ও বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাদেরসহ আরও ২০টির বেশি কবরে ৩ ফিট শ্মশানের মাটি দিয়ে ভরাট করে ফেলেন।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Back to top button