বর্তমান সময়ের তরুণ প্রজন্মের একজন মানবিক ডাক্তারের গল্প।

গত দেড় বছর ধরে করোনার প্যানডেমিক চলছে তার আপন গতিতে, তাণ্ডবলীলা চালিয়ে যাচ্ছে সারা বিশ্বে। শুরু থেকেই ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রথম সারির যোদ্ধা, তারা সব ভয় জয় করে জীবনবাজি রেখেই আক্রান্তদের চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন অত্যন্ত সাহসের সঙ্গে, করোনাকালের পুরোটা সময় অভাবনীয় সেবা দিয়েছেন এবং দিয়ে চলছেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের পর সাধারণ মানুষের পাশাপাশি অনেক ডাক্তাররাও যখন রোগীর চিকিৎসা নিয়ে আতঙ্কে আছেন, সেই সময়ে একজন মানবিক ডাক্তারের প্রচেষ্টায় হাজার হাজার মানুষের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে।

তেমনই একজন হলো চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে কর্মরত ডাঃ মাহামুদুল ইসলাম চৌধুরী। ৫-৬ মাস হয়েছে হয়ে পরিবারের মানুষদের কাছাকাছি যাওয়া বন্ধ করেছেন তিনি। উদ্দেশ্য একটাই করোনার এই মহামারীতে লড়বেন তিনি মানবজাতির যোদ্ধা হয়ে।

তিনি বলেন, শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ব্যায়ামের গুরুত্ব, শ্বাসকষ্ট প্রতিরোধে ব্যায়াম কি কি আছে? কোন খাবার খেলে ওজন কমবে? এইসব সাধারণ প্রশ্নের উত্তর জানলে চিকিৎসা খরচ যেমন অনেক কমে যাবে, ঠিক তেমনি অনাকাঙ্ক্ষিত অসুখ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব হবে।

একদিকে কম ভিজিটে সাধারণ মানুষকে দিচ্ছেন নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা।আবার অনলাইনে দিচ্ছেন সু -স্বাস্থ্যের বার্তা। হাসপাতালে আসতে না পারা মুমূর্ষু রোগীর স্বজনদের ফোনে রাত-বিরাতে চলে যাচ্ছেন তাদের বাড়িতে। এভাবে চলমান করোনাকালীন সময়ে চিকিৎসা সেবায় মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন ডাক্তার মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী নামে চট্টগ্রামের এক তরুণ চিকিৎসক।

ডাক্তার মাহামুদুল ইসলাম উত্তর চট্টগ্রামের
রাউজান উপজেলার কদলপুর গ্রামের সন্তান। তিনি ২০১৫ সালে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করে ৩৯তম বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডার হিসেবে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে যোগদান করেন তিনি ।বর্তমানে এই তরুণ চিকিৎসক জেলার বৃহত্তম করোনা স্পেশালাইজেশন স্বাস্থ্যকেন্দ্র চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে করোনা ইউনিটে কর্মরত আছেন।

জানা যায়, হাসপাতালে দায়িত্বপালনের পাশাপাশি ডাক্তার মাহামুদুল ইসলাম তার নিজের এলাকায় সাধারণ মানুষের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।চেম্বারে আসা গরীব অসহায় রোগীদের অনেককে ফ্রি চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন তিনি।আবার অনেককে দিচ্ছেন অল্প টাকায় স্বাস্থ্যসেবা।এলাকার এতিম এবং মাদ্রাসার শিক্ষার্থী, শিক্ষক, বন্ধুদেরও দিচ্ছেন ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা। ইতোমধ্যে এলাকায় গরীবের ‘মাহমুদ ডাক্তার’ নামে পরিচিতি পেয়েছেন এই তরুণ চিকিৎসক।

এদিকে করোনাকালীন মুহুর্তের এই সম্মুখযোদ্ধা অনলাইনেও দিচ্ছেন স্বাস্থাসেবা।’ওষুধ ছাড়াই কিভাবে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধান করবেন? কিভাবে ঘরোয়া উপায়ে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখবেন? কিভাবে ঘুমের সমস্যার সমাধান করবেন? করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের থেকে নিজেকে কিভাবে রক্ষা করবেন?’ বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় করণীয় নিয়ে তার এমন ছোট ছোট ভিডিও ক্লিপসগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে এখন।

জানা যায়, শুরুতে শুধু করোনা বিষয়ক স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক ভিডিও বানালেও বর্তমানে পুষ্টি বিষয়ক পরামর্শ ,মানসিক স্বাস্থ্যসহ দীর্ঘমেয়াদি নানা রোগে মানুষের করণীয় নিয়ে পরামর্শমূলক ভিডিও বানাচ্ছেন তিনি। নিজের ব্যক্তিগত পেজ ছাড়াও “মানবতার সেবায় ডাক্তার” নামক পেজের মাধ্যমে সহজ আর প্রাঞ্জল বাংলা ভাষায় মাহামুদুলের স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে লাখ লাখ মানুষের কাছে। ৩ লাখের বেশি মানুষ এখন মাহামুদুলের ফেসবুক পেজ অনুসরণ করেন। অন্যদিকে ইউটিউবে তাঁর স্বাস্থ্যবার্তার ভিডিও প্রায় ১২ লাখ বার দেখা হয়েছে।

এই বিষয়ে ডাক্তার মাহামুদুল ইসলাম বলেন, চিকিৎসা পেশা একটি মানবিক পেশা।এখানে থেকে যেভাবে মানুষের সেবা করা যায়, অনেক পেশায় সেভাবে হয় না।এখন আমি যা করছি তা আমার সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই করছি।

তিনি বলেন, আমরা ছোটখাটো অনেক বিষয়ে হাসপাতাল ছুটাছুটি করি।কিন্তু এসব বিষয়ে আমাদের প্রাথমিক ধারণা থাকলে অনেক কিছু সহজ হয়ে যায়।এই ধরেন,রক্তে কোলেস্টেরল, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসের মতো পরিচিত দীর্ঘমেয়াদি রোগগুলোর লক্ষণ, এসব রোগ নিয়ন্ত্রণে আমাদের সঠিক জীবনযাত্রা, খাদ্যাভ্যাস কেমন হওয়া উচিত এসব নিয়ে আমরা নিজেরাই অনেক কিছু জানতে পারি।আর এসব রোগের ক্ষেত্রে কখন ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া সেটাও অন্তত আমাদের জানা উচিত। এতে আমাদের চিকিৎসা খরচ যেমন কমবে, ঠিক তেমনি অনাকাঙ্ক্ষিত অসুখ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে। আর আমি অনলাইনে দেয়া ছোট ছোট ক্লিপসগুলোতে এসব বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা দেয়ার চেষ্টা করছি।’

প্রচারবিমুখ এই মানবিক ডাক্তার তাঁর ব্যক্তিগত চেম্বারে গরিবদের কথা ভেবে খুব অল্প ভিজিটে রোগী দেখছেন। এছাড়া তাঁর চেম্বারে ফ্রীতে সেবা পান-অতি দরিদ্র যেকেউ, এতিম এবং মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রী, মসজিদের হুজুরগণ, তাঁর শ্রদ্ধেয় শিক্ষকগণ, তাঁর কাছের বন্ধুগণ এবং মেডিকেল, ডেন্টালে বিষয়ে অধ্যয়নরত ছাত্রছাত্রীরা।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button