মানব পাচার মামলার প্রধান আসামি জুলহাস গ্রেফতার

লিবিয়ায় মানব পাচার ও হত্যার ঘটনায় বিভিন্ন থানায় দায়েরকৃত মামলার আলোচিত প্রধান আসামী জুলহাস সরদারকে গ্রেফতার করেছে রাজৈর থানা পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেলে মাদারীপুর সদর হাসপাতাল থেকে তাকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়।

আদালতের বিচারক তাকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। মানব পাচার মামলার আসামী জুলহাস সরদার এতোদিন করোনা ভাইরাসের নমুনা দিয়ে মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে পুলিশের হেফাজতে চিকিৎসাধীন ছিলো। এর মধ্যে ২বার প্রেরিত নমুনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় মঙ্গলবার বিকেলে তাকে হাসপাতাল থেকে ছারপত্র দেওয়া হয়। জুলহাস সরদার রাজৈর উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের সত্যবতী গ্রামের আবদুল মজিদ সরদারের ছেলে।

মামলার এজাহার ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ মে রাত ৯টায় লিবিয়ার মিজদাহ এলাকায় গুলি করে যে ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে মানব পাচারকারীরা। এর মধ্যে ১২জনের বাড়ি মাদারীপুরে। এ ঘটনায় লিবিয়ায় নিহত রাজৈর উপজেলার হোসেনপুর (বিদ্যানন্দী) গ্রামের মানিক হাওলাদারের পিতা শাহ আলম হাওলাদার বাদি হয়ে জুলহাস সরদারসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ্য করে একটি মামলা দায়ের করেন।
এদিকে একই ঘটনায় মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার হোসেনপুর (বিদ্যানন্দী) গ্রামের লিবিয়ায় নিহত জুয়েলের বাবা রাজ্জাক হাওলাদার বাদী হয়ে দালাল জুলহাস সরদারসহ ৪ জনের নামে মানব পাচার আইনে একটি মামলা করেছে রাজৈর থানায়। এছাড়াও রাজৈর থানার বদরপাশা ইউনিয়নের নিহত রহিম খালাসীর ভাই আবুল খায়ের খালাসী বাদী হয়ে রাজৈর থানায় আরো একটি মামলা দায়ের করেছে। এই মামলা জুলহাস সরদারসহ ৭ জনকে আসামী করা হয়েছে।

অন্যদিকে মাদারীপুর সদর উপজেলার দুধখালি ইউনিয়নের দক্ষিণ দুধখালি গ্রামের মো. শামীম হাওলাদারের বাবা হালিম হাওলাদার বাদী হয়ে মাদারীপুর সদর থানায় ৩ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। এই মামলার প্রধান আসামী করা হয়েছে দালাল নজরুল মোল্লার স্ত্রী দিনা বেগমকে। দালাল নজরুল মোল্লা এখন লিবিয়াতে রয়েছেন। ওই রাতেই মামলার প্রধান আসামী দিনা বেগমকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।
এছাড়া লিবিবায় গুলি করে দুই যুবককে হত্যা ও অপর যুবককে আহত করার ঘটনায় গত ১ জুন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানায় তিন মানব পাচারকারী বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন উপজেলার বামনডাঙ্গা গ্রামের নিহত সুজন মৃধার পিতা কাবুল মৃধা। ওই মামলার আসামী দালাল রব মোড়লের স্ত্রী নার্গিস বেগমসহ (৪০) সেন্টু সিকদার (৪৫) র‌্যাবের হাতে বুধবার রাতে গ্রেফতার হয়। ওই মামলার আসামি জুলহাস সরদার।

রাজৈর থানার ওসি খোন্দকার শওকত জাহান বলেন, “মানব পাচার ও হত্যার ঘটনায় দায়েরকৃত ৫ মামলার অন্যতম প্রধান আসামী জুলহাস সরদার প্রথম থেকে করোনার নমুনা দিয়ে পুলিশ হেফাজতে মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে ছিলো। পরে তার করোনার নমুনা পর পর দুইবার নেগেটিভ রিপোর্ট আসায় আজ দুপুরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে রিলিজ করে দেয়। পরে আমরা তাকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেছি।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button