মানুষরূপী অমানুষেরদল আনারসে বিস্ফোরক ভরে খাইয়েছিল

কেরালার মালাপ্পুরমের অন্তঃসত্ত্বা ১৫ বছরের এই হস্তিনীটি অরণ্য ছেড়ে স্থানীয় গ্রামে গিয়েছিল খাবারের সন্ধানে। গ্রামবাসীরা একটি আনারসের মধ্যে বাজিপটকা স্টাফ করে তাকে খেতে দেয়। গর্ভিণী হাতিটি সরল বিশ্বাসে তা খায়। তারপর পেটের মধ্যে গিয়ে বাজি ফাটতে শুরু করলে সে হকচকিয়ে যায়। দিনের পর দিন যন্ত্রণায় ছটফট করেছিল সেই গর্ভবতী হাতি। অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতে সে সারা গ্রাম ছুটে বেড়াতে থাকে। সেই অবস্থাতেও সে কোন বাড়ি বা গাছ ভাঙচুর করেনি।

তারপর যখন বোঝে সে আর বাঁঁচবে না, বাঁঁচবেনা গর্ভস্থ সন্তানও, এইভাবে নদীমধ্যে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সে মৃত্যুবরণ করে নীরবে। এই ভয়ঙ্কর হৃদয়বিদারক ঘটনাটি প্রকাশ করেছেন স্থানীয় ফরেস্ট অফিসার। তাঁরা Rescue team নিয়ে যখন পৌঁছন, তখন হাতিটি কিছুতেই আর মানুষের কাছে আসার ভুল দ্বিতীয়বার করেনি। । তার বিশ্বাস ভেঙে গিয়েছিল। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়েই মারা গিয়েছে সে। সবাইকে স্তম্ভিত করে।

কেরলের পালাককাদ জেলার এই ঘটনা সারা ভারতবর্ষে হইচই ফেলে দিয়েছে। যদিও পুলিশ এই ঘটনায় জড়িতদের মধ্যে কাউকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি। তবে মামলা রুজু হয়েছে। তদন্তে নেমেছে পুলিশ। বন দফতরের কর্মীরা মনে করছেন, এপ্রিল মাসের শেষে নাহলে মে মাসের শুরুতে ঘটনাটি ঘটেছিল। হাতির অটপসি রিপোর্ট হাতে পেয়েছেন বন দফতরের কর্তারা।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button