মুখে হাসি হাতে গালি;এর দ্বারা কি বোঝাতে চাইলেন পরিমনি।

উঠে এসেছেন অজপাড়া গাঁ থেকে। নিজেকে বিকশিত করেছেন আপন আলোয়। নানা প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে নানার হাত ধরে বাবা-মা হারানো স্মৃতিমণি আজ প্রতিষ্ঠা পেয়েছেন ঢালিউডের ডাকসাইটে সুন্দরী নায়িকা পরীমনি হিসেবে।

সিনেমার সংখ্যা সব মিলিয়ে ৩০টির মতো। অর্থনৈতিক সাফল্যের মুখ না দেখলেও পরীর ক্যারিয়ারে আছে প্রশংসা পাওয়া কিছু সিনেমা। যার মধ্যে ‘স্বপ্নজাল’, ‘রক্ত’, ‘স্ফুলিঙ্গ’-দের এগিয়ে রাখা যায়।

সম্প্রতি তিনি কিছু সিনেমায় যুক্ত হয়েছেন, যা তাকে আরও প্রশংসিত করতে পারে। সেগুলো হলো ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’, ‘প্রীতিলতা’। তার মধ্যে প্রথমটির নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। দ্বিতীয়টি শিগগিরই শুটিংয়ে যাবে।

পরীমনির সৌন্দর্য আছে, গ্ল্যামার আছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় লাখ লাখ ভক্ত অনুরাগী আছে। এশিয়ার সেরা প্রভাবশালী তারকা হয়ে দেশকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পৌঁছে দেয়ার গর্বও আছে পরীমনির। এই পরীর কিছু ত্রুটিও আছে।

সেই ত্রুটির দায় নিয়ে তিনি সম্প্রতি কারাভোগ করেছেন। ৪ আগস্ট মাদকসহ বনানীর নিজ বাড়ি থেকে আটক হন। ৫ আগস্ট গ্রেফতার দেখানো হয় তাকে। নানা ঘটনার পরিক্রমায় তিনি জামিনে মুক্ত হয়ে বাসায় ফিরলেন (১ সেপ্টেম্বর) ২৮ দিন পর।

তাকে একনজর দেখতে হাজির হয়েছিলেন অনেক ভক্ত অনুরাগী। কাশিমপুর কারাগারের সামনে ছিল উৎসুক জনতার ভিড়। তাকে বরণ করতে গিয়েছিলেন তার কাছের কিছু মানুষও। পরীমনি কারাগার থেকে বেরিয়ে এলেন। অনেকেই হয়তো ভাবছিলেন হতাশ, মানসিকভাবে বিপর্যস্ত পরীমনির মলিন মুখ দেখবেন।

কিন্তু পরীমনি ধরা দিলেন সবাইকে অবাক করে মুখ ভরা হাসি নিয়ে। হুড খোলা একটি গাড়িতে কাশিমপুর থেকে ঢাকায় ফিরলেন। তার কারা ফটকের সামনে ভক্তদের অনেকের সঙ্গেই হাত মেলান, তাদের উদ্দেশে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান এ অভিনেত্রী।

মাথায় সাদা ওড়না বেঁধেছেন পাগড়ির মতো করে। চোখে সানগ্লাস।

তবে এসব ছাপিয়ে দৃষ্টি কেড়ে নিলো পরীমনির হাতে মেহেদিতে লেখা একটি ইংরেজি বাক্য। ‘ডোন্ট লাভ মি বিচ’; ‘আমাকে ভালোবেসো না….’।

একদিকে লোকের ভালোবাসা গ্রহণ করে হাত নাড়ছেন হাসিমুখে। অন্যদিকে হাতে মেহেদির রঙে লেখা গালি দেয়া বার্তায় জানাচ্ছেন তাকে কেউ যেন ভালো না বাসে! কিন্তু কেন? অভিমানে?

রহস্যময় সেই কথা মুখে বলবেন না কোনো দিনই কার উদ্দেশ্যে বা কাদের উদ্দেশ্যে ভালো না বাসার এ বার্তা নায়িকার।

বিষয়টি তুমুল আলোচনার জন্ম দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অনেকে দাবি করছেন, কাছের মানুষ হিসেবে পরিচিত, সহকর্মী ও সিনেমা সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলোর প্রতিই হয়তো এ বার্তা পরীমনির। যারা তার আটক হওয়ার পর আর খোঁজ রাখেননি, পরীমনির জন্য কথা বলেননি। বরং দাবি করেছেন পরীমনির শাস্তি হওয়াটাই স্বাভাবিক।

ভক্তদেরও অনেকে পরীকে উপহাস করেছেন আটক হওয়ার পর। ৯০ লাখ ফ্যান ফলোয়ারের মালিক পরীমনি তার ভক্তদের প্রতিক্রিয়া নিয়েও হয়তো খুশি নন। হয়তো তাদেরও একটা বার্তা দিয়ে রাখলেন।

পরীমণির ডান হাতের তালুতে মেহেদি দিয়ে লেখা ছিল ‘ডোন্ট লাভ মি বিচ’। লেখার নিচে এমন একটা প্রতীক, শোভন বাংলায় যার অর্থ ‘গোল্লায় যাও’। এই সব কথা ও প্রতীক দিয়ে আসলে কী বলতে চাইছেন পরীমণি?

সবার মনের কোণে জমে থাকা সেই প্রশ্নের উত্তর দিলেন পরীমণি। জানালেন, এটা তিনি ‘বিচ’দের উদ্দেশ্যেই বলেছেন। পরীমণি বললেন, ‘যারা বিচ তাঁদের উদ্দেশ্যে এমন কথা বলেছি। লেখাটা পড়ে যাঁদের মনে হবে, আল্লাহ, আমাকে নিয়ে এটা লিখল—তাঁদের উদ্দেশ্যেই এই লেখা। ওদের তালিকা তো আমি নাম ধরে বলতে পারব না। আমাকে আটক, গ্রেফতার এবং কারাগারের নিয়ে যাওয়ার পর তাদের জীবন সার্থক মনে হয়েছে।

কেউ কেউ তো খুশিতে নাচাও শুরু করেছে। যেই আমি ফিরে আসছি, অনেকে আবার মিস ইউ, লাভ ইউ বলা শুরু করছে। এই ধরনের ভালোবাসা আমার দরকার নাই। আমি তাদেরকেই বলেছি, তোমরা আমাকে ভালোবাইসো না। আমি যাদের জন্য পরীমণি, যারা সত্যি সত্যি আমাকে অন্তরের মধ্যে বসাইয়ে রাখছে, তাদের আমি সব সময় ভালোবাসি। আজীবন ভালোবাসি।’

‘ডোন্ট লাভ মি বিচ’ লেখা সেই হাত নাড়ছেন পরীমণি।
বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নায়িকার মতোই বের হয়ে আসেন পরীমণি। হুড খোলা একটি গাড়িতে করে কাশিমপুর থেকে ঢাকায় ফেরার আগে ভক্তদের অনেকের সঙ্গেই হাত মেলান, তাঁদের উদ্দেশে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান এই অভিনেত্রী।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Back to top button